মাসমাক দুর্গ

মাসমাক দুর্গ, রিয়াদ

রিয়াদের একটি গুরুত্বপূর্ণ ঐতিহাসিক গন্তব্য হলো মাসমাক দুর্গ। মাসমাক দুর্গটি সৌদি আরবের রাজধানী রিয়াদে অবস্থিত। আরবিতে “মাসমাক” অর্থ: দুর্গের জন্য উচ্চ, ঘন এবং বিশাল- গুরুত্বপূর্ণ গুণ যা রাজ্যকে একীকরণে রাজা আবদুল আজিজের বড় উদ্যোগ প্রত্যক্ষ করেছে।

৪৫০০ বর্গমিটার এলাকা জুড়ে এই দুর্গে আজ লোক উৎসব এবং অন্যান্য ক্রিয়াকলাপ অনুষ্ঠিত হয়।মাসমাক দুর্গ সংলগ্ন একটি মসজিদ রয়েছে। ঐতিহ্যবাহী স্থানীয় স্থাপত্যের প্রতিফলনের জন্য মসজিদটি পুনরায় নির্মাণ করা হয়। ১৯৮০ সালে দুর্গে কিছু সংস্কার করা হয় এবং ১৯৯৫ সালে এটিকে যাদুঘর হিসেবে পরিগণিত করা হয়। যাদু ঘরটি রাষ্ট্রীয় অতিথিদের পাশাপাশি বিদেশী দর্শনার্থী এবং স্থানীয় বাসিন্দাদের কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হয়েছে। এতে তৎকালীন বেশ কিছু বন্দুক, পোশাক ও কৃষিজাত শিল্পদ্রব্য প্রদর্শনের ব্যবস্থা আছে। এছাড়াও যাদুঘরটিতে ফটোগ্রাফ, মানচিত্র, মডেল, ডিসপ্লে ক্যাবিনেট, ঐতিহ্যবাহী জিনিস পত্র, প্রদর্শনী এবং অডিওভিজুয়াল হল রয়েছে।

১৮৬৫ সালে মোহাম্মদ ইবনে আব্দুল্লাহ ইবনে রশিদের শাসনামলে রিয়াদের যুবরাজ আব্দুল রহমান ইবনে সুলাইমান ইবনে দাবান দুর্গটি নির্মাণ করেছিলেন। পরবর্তীতে ইবনে রশিদ ইবনে সৌদের কাছ থেকে রিয়াদ দখল করে নিয়ে ছিলো। কিন্তু ইবনে সৌদ ১৯০২ সালে দুর্গটি পুনরায় দখল করে নেন। যা ইসলাম ইতিহাসে ভবিষ্যত রাজা আবদুল আজিজের বীরত্ব ও সাহসের মূর্তপ্রতীক হয়ে উঠে।

বর্তমানে এই দুর্গটি কিং আবদুল আজিজ হিস্ট্রিকাল সেন্টারের অন্যতম অংশ। ১৯৯৯ সালে এর শতবর্ষ পূরণের অনুষ্ঠান হয়। এর পাম গাছের গেট ৩.৬৫ মিটার উঁচু ও ২.৬৫ মিটার প্রশস্ত। দরজার মাঝ খানটিতে রয়েছে ‘’আল-খোখা’’ নামক একটি প্রবেশ পথ। যেকোনো সময়ে শুধুমাত্র একজন লোক এই দরজা দিয়ে প্রবেশ করতে পারে। এটি একটি প্রতিরক্ষা মূলক ব্যবস্থা। যার ফলে গেট না খুলেই একজন লোক ভেতরে প্রবেশ করতে পারে। দুর্গে একটি মসজিদ ও কূপ রয়েছে। এর ছাদ পামসহ বিভিন্ন রঙিন কাঠ দ্বারা আচ্ছাদিত। অভ্যন্তরীণ কক্ষের গেট গুলোও রঙিন কাঠ দ্বারা নির্মিত। খেজুরের তালা গুলি দুর্গের দক্ষিণ প্রান্তকে ছায়া যুক্ত করে, যেখানে চুনা পাথরের সাহায্যে বেশ কয়েকটি প্যাসেজওয়ে রয়েছে।ওমরাহ এন্ড হজ্জ পালন করতে যাওয়া অনেক তীর্থযাত্রীর সুযোগ হয় এই দুর্গ গুলো দর্শন করার

 

তথ্য সংগ্রহ :  উইকিপিডিয়া, সৌদি গেজেট।